মেট্রোরেলের জন্য নতুন পুলিশ ফোর্স!

বাংলাবাজার পত্রিকা
মেট্রোরেলের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলায় পুলিশের বিশেষ একটি ফোর্স গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ওই লক্ষ্যে এমআরটি পুলিশ নামে একটি নতুন ফোর্স গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। ইতোমধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে এমআরটি পুলিশ নামে একটি সাংগঠনিক কাঠামোর প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

এমআরটি পুলিশের জন্য একজন ডিআইজি, একজন অতিরিক্ত ডিআইজি, ৩ জন এসপি, ৫ অতিরিক্ত এসপি, ৭ এএসপি, ৩২ পরিদর্শক (নিরস্ত্র), ৪ পরিদর্শক (সশস্ত্র), একজন টিআই (ট্রাফিক), ২০৭ এসআই (নিরস্ত্র) ও ১১ এসআই (সশস্ত্র), এএসআই ও কনস্টেবলসহ ৮০৯ পদ নতুন করে সৃজনের কথা বলা হয়েছে।

তাছাড়া বিভিন্ন ধরনের ৯৬ যানবাহনের প্রস্তাবও করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, যানজট নিরসনে রাজধানীতে মেট্রোরেলের নির্মাণকাজ চলছে। ২০১৬ সালের ২৬ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর উদ্বোধন করেন।

ওই সময় বলা হয়েছিল, ঢাকার উত্তরা থেকে মেট্রোরেলের বদৌলতে ব্যস্ততম বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিলে পৌঁছতে সময় লাগবে মাত্র ৩৮ মিনিট।

ওই মেট্রোরেলের কাজ এখন দ্রুতগতিতে এগোচ্ছে। আশা করা হচ্ছে স্বাধীনতার ৫০ বছরপূর্তি উদ্যাপনের বর্ষ অর্থাৎ ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মেট্রোরেল চালু হবে।

সূত্র জানায়, ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানির (ডিএমটিসিএল) আওতায় রাজধানীতে ম্যাস র্যাতপিড ট্রানজিট (এমআরটি-মেট্রোরেল) প্রকল্প নির্মাণাধীন রয়েছে।

এর নির্মাণ, শৃঙ্খলা ও পরিচালনার জন্য পৃথক এমআরটি পুলিশ ফোর্স গঠন করতে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানানো হয়।

যদিও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এর প্রয়োজনীয়তা নেই বলে জানানো হয়। তবে গত ১৬ সেপ্টেম্বর গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এমআরটি বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি সংক্রান্ত পর্যালোচনা সভার কার্যবিবরণীতে নতুন পুলিশের এ ইউনিট গঠনের বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়।

পুলিশ সদর দপ্তর থেকে এমআরটি ব্যবস্থাপনার স্বার্থে পুলিশের একটি সাংগঠনিক কাঠামোতে স্বতন্ত্র এমআরটি পুলিশ গঠনের বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মতামত পাঠানো হয়।

এদিকে এমআরটি পুলিশ ফোর্স নামে পুলিশের একটি নতুন ইউনিট গঠনের লক্ষ্যে ৮০৯ জনের একটি জনবলের চাহিদার তালিকা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের এএসপি সুদীপ্ত সরকার জানান, এমআরটি পুলিশের জন্য ৮০৯ জনের একটি সাংগঠনিক কাঠামোর তালিকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ‘এমআরটি পুলিশে’র একটি জনবল কাঠামোর অনুমোদন চেয়ে ফাইল এসেছে। বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।