ঘুষ না পেয়ে বিদ্যুৎ গ্রাহককে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

বাংলাবাজার পত্রিকা
জামালপুর: ঘুষের টাকা না পেয়ে বিদ্যু গ্রাহককে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে জামালপুর পিডিবি’র এক উপ-সহকারী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে। পিডিবির সমূদয় বকেয়া পরিশোধ করলেও মামলা থেকে রেহাই পাননি নিরিহ এক গ্রাহক।

জামালপুর সদর উপজেলার রামপুর গ্রামের সুরুজ আলীর পুত্র মনজুরুল ইসলাম রোববার রাতে জামালপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, তিনি একজন সাধারণ রাইসমিল ব্যবসায়ী ছিলেন।

ব্যবসায় ক্ষতিগ্রস্ত হবার পর বসতবাড়িসহ সবকিছু বিক্রি করেন। তার নামে থাকা বিদ্যুৎ সংযোগে ৭৮ হাজার টাকা বকেয়া থাকে।

জামালপুর পিডিবির উপসহকারী প্রকৌশলী অনুজ চন্দ্র তার কাছে ৪০ হাজার ঘুষ দাবি করেন। টাকা দিলে তার সমূদয় বকেয়া পরিশোধ করার প্রতিশ্রুতি দেন।

অনুজ চন্দ্রের প্রস্তাবে রাজি না হয়ে বিদ্যুৎ গ্রাহক মনজুরুল ইসলাম ৭৮ হাজার টাকাই পরিশোধ করেন।

এর পরেও ২০১৯ সালের ২ মে উপসহকারী প্রকৌশলী তার বাড়িতে যান এবং নিজেরাই একটি মিটার ও সার্ভিস লাইনের তার টেনে ছবি তোলেন।

সেখান থেকে ফিরে মনজুরুল ইসলাম, তার বৃদ্ধ বাবা সুরুজ আলী, পুত্র শ্রাবণের নামে বিদ্যুৎ আদালতে ৩টি মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন।

১৫ দিন জেল হাজতে থাকার পর জামিনে বের হয়ে অনুজ চন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করলে এবার তিনি দাবি করেন আরো দুই লাখ টাকা।

টাকা না দিলে ওই পরিবারকে মামলার জালে ফেলে শেষ করার হুমকী দেন। সর্বস্বান্ত হওয়া বিদ্যুৎ গ্রাহক মনজুরুল ইসলাম বিদ্যুৎ অফিসের হয়রানী থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

তবে অভিযুক্ত উপ সহকারী প্রকৌশলী অনুজ চন্দ্র টেলিফোনে জানান, মনজুরুলের অভিযোগ সঠিক না, তাদের বিরুদ্ধে নিয়ম অনুযায়ী মামলা হয়েছে।