শিশুসহ এক পরিবারের দুজনের মৃত্যু, করোনা ভাইরাস আতঙ্ক

বাংলাবাজার পত্রিকা
লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ): মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় শিশুসহ একই পরিবারের দুজনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার উপজেলার জসলদিয়া এলাকায় ১৭ ঘণ্টার ব্যবধানে ওই দুজনের মৃত্যু হয়। তারা হলেন- জসলদিয়া গ্রামের মীর সোহেলের ছেলে মীর আবদুর রহমান (৩) ও সোহেলের ভাবি শামীমা বেগম (৩৪)।

স্বজনদের দাবি, দুজনই হঠাৎ করে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। অল্প সময়ের মধ্যে একই পরিবারের দুজনের মৃত্যুতে ওই এলাকার মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

শামীমার দেবর মীর মো. শিবলু বলেন, ভাবির শনিবার সকালে জ্বর হয়। দুপুরে জ্বর আরও বাড়ে। স্থানীয় ডাক্তারের পরামর্শে তার চিকিৎসা চলছিল। রাতে জ্বর আরও বাড়ে।

একই সঙ্গে শরীরের বিভিন্ন অংশে চাক চাক রক্তের দাগ দেখা যায়। রোববার সকাল নয়টার দিকে তিনি মারা যান।

শিশু আবদুর রহমানের মা পপি আক্তার বলেন, আমার জা শামীমাকে রোববার বিকেলে দাফন করা হয়।

এরপর থেকে ছেলের জ্বর শুরু হয়। শামীমার শরীরে যেসব লক্ষণ দেখা দিয়েছিল, একই রকম লক্ষণ আমার ছেলের শরীরেও দেখা দেয়।

কোনো রকম চিকিৎসা দেয়ার আগেই রাত দুইটার দিকে ছটফট করতে করতে মারা যায়।

মো. শিবলু বলেন, এমন রোগ এর আগে তারা কেউ দেখেনি। তার দাবি, এটা করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণেই হয়েছে।

এ ঘটনায় পর সোমবার সকালে সিভিল সার্জন অফিস ও উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে মেডিকেল টিম পাঠানো হয়।

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাশেদুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মুন্সিগঞ্জ সিভিল সার্জন আবুল কালাম আজাদ জানান, লক্ষণ দেখে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি করোনাভাইরাস নয়।

এ বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন। এ ছাড়া ওই এলাকায় এমন রোগী আর আছে কি না, তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এদিকে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাস ইতোমধ্যে কেড়ে নিয়েছে ৮১ জনের প্রাণ।

সংক্রমিত হয়েছে তিন হাজারের বেশি মানুষের দেহে। এরফলে বাংলাদেশ-ভারতসহ এশিয়াজুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে ভয়ংকর এই ভাইরাসটি।