থানার সামনে ছুরিকাঘাত করে ছিনতাই

বাংলাবাজার পত্রিকা
সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ): সোনারগাঁয়ে পুলিশ চেকপোস্টের সামনে কভার্ডভ্যানের হেলপার খুন হওয়ার পর এবার থানার ৫শ’ গজ সামনে ছিনতাই হয়েছে।

ছিনতাইকারীরা স্থানীয় বিকাশ এজেন্ট মো. জুলহাসকে (২৮) কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে ২টি মোবাইল সেট, স্বর্ণের চেইন ও নগদ প্রায় ২ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়।

সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সোনারগাঁ থানার মাত্র ৫শ’ গজ দূরে ভবনাথপুর এলাকায় এ ছিনতাইয়ের ঘটনা সংঘটিত হয়। আহত বিকাশ এজেন্টকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও আহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, সোনারগাঁ থানার সামনে রাকিব টেলিকম নামের বিকাশ এজেন্ট ও ফ্লেক্সিলোডের দোকান খুলে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন। সোমবার রাত সাড়ে ১০ টায় দোকান বন্ধ করে নিজের মোটরবাইক যোগে তার বাড়ি ভাটিবন্দর যাচ্ছিলেন।

পথে সোনারগাঁ থানা সংলগ্ন ব্রিজের ওপারে ভবনাথপুর এলাকায় মোল্লা এন্টারপ্রাইজ নামের বালুর গদি অতিক্রমকালে সিএনজি বেবীটেক্সী যোগে ৪/৫ জনের একটি সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারীর দল জুলহাসের গতিরোধ করে তার উপর হামলা চালায়। ছিনতাইকারীরা জুলহাসের ঘাড়ে, পিঠে, হাতে, পেটে, কুপিয়ে এবং ছুরিকাঘাত করে মারাত্মকভাবে জখম করে।

এ সময় জুলহাস মাটিতে লুটিয়ে পরে। তার আর্তচিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে আসলে ছিনতাইকারীরা জুলহাসের সাথে থাকা নগদ প্রায় ২ লাখ টাকা, দুটি মোবাইল সেট, গলায় থাকা একটি স্বর্ণেন চেইন নিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে এলাকাবাসী ও তার স্বজনরা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। আহত জুলহাস উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের ভাটিবন্দর এলাকার মো. শহীদুল্লার ছেলে।

আহত বিকাশ এজেন্ট মো. জুলহাস বলেন, রাতে সিএনজি বেবীটেক্সিযোগে ছিনতাইকারীরা আমাকে আটকে সাথে থাকা টাকা নিতে চায়। আমি বাঁধা দেয়ার তারা আমাকে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে আমার কাছ থেকে প্রায় ২ লাখ টাকা, দুটি মোবাইল সেট, গলায় থাকা একটি স্বর্ণেন চেইন ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

তিনি বলেন, আমি কখনো কারো সাথে ঝগড়া বিবাদ করিনি, কারো সাথে আমার এমন কোন শত্রুতাও নেই।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি রাতেই শুনেছি। তবে এ বিষয়ে এখনো কেউ অভিযোগ করতে আসেনি। ধারণা করা হচ্ছে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

উল্লেখ, গত শনিবার রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পিরোজপুর ইউনিয়নের আষাঢ়িয়ারচর এলাকায় ছিনতাইকারীর দল কর্ভাড ভ্যানের চালক ও হেলপারকে ছুরিকাঘাত করে টাকা ও মোবাইল সেট নিয়ে যায়। এ সময় ছিনতাতাইকারীর ছুরিকাঘাতে ওই কর্ভাডভ্যানের হেলপার মারা যায়। পুলিশ এ ঘটনায় একটি ডাকাতি মামলা গ্রহণ করেছে।