অস্ত্রসহ ছবি তোলায় সাংবাদিকের ওপর হামলা

বাংলাবাজার পত্রিকা
ঢাকা: রাজধানীর মোহাম্মদপুরে জাফরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের সামনে সাদেক খান রোডে এক সাংবাদিকের ওপর হামলা চালানো হয়েছে।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি হামলার শিকার হন। আহত সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান সুমন অনলাইন নিউজ পোর্টাল আগামী নিউজে কর্মরত।

তার বাড়ি সাতক্ষীরা। তিনি ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সদস্য।

দুপুর ১২টার দিকে আহত সুমনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। জরুরি বিভাগে তাকে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে সিটি স্ক্যান করাতে বলেছেন।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, মোহাম্মদপুরের জাফরাবাদে হামলার শিকার হয়েছেন সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান সুমন। তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসা হয়েছে। জরুরি বিভাগে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

জাফরাবাদের এই কেন্দ্রটি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডে পড়েছে। এই ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন খোকন। অন্যদিকে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন সংসদ সদস্য সাদেক খানের ভাতিজা রাজেশ খান।

ঘটনার সময় ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্র্যাব) সাবেক সভাপতি সালেহ আকন্দ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।

তিনি আহত সাংবাদিক সুমনের সঙ্গেও রয়েছেন। তিনি বলেন, কাউন্সিলর প্রার্থী খোকনের (টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক) সমর্থকরা অস্ত্র নিয়ে ঘুরছিল। সেই ছবি তুলছিল মোস্তাফিজ। এটি দেখামাত্র ওই অস্ত্র দিয়েই তার মাথায় আঘাত করা হয়। এরপর সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

আলোকিত সময়ের সাংবাদিক আজমী আনোয়ার জানান, সাদেক খান রোডের একটি ভোটকেন্দ্রে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হচ্ছিল।

খবর পেয়ে সুমন সেখানে সংবাদ সংগ্রহ করতে যায়। ওই সময় জাফরাবাদ এলাকার সাদেক খান রোডে ৩৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী খোকনের সমর্থকরা ২০-৩০ জনের একটি দল নিয়ে শোডাউন করছিলেন।

সুমন সেই ছবি তুললে তারা সুমনকে আক্রমণ করে। পরে স্টাম্প দিয়ে সুমনের মাথায় আঘাত করে। সে পড়ে গেলে তাকে কিল-ঘুষি দেয় ও লাঠিপেটা করতে থাকে। পরে সহকর্মীরা এগিয়ে এসে সুমনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

দুপুর ২টার দিকে ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা. মো. আলাইদ্দিন জানান, সুমনের মাথার আঘাত রয়েছে, সেখানে ছয়টি সেলাই দিতে হয়েছে।

তার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কামুক্ত। তাকে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। পরবর্তী সময়ে ড্রেসিং করার জন্য আসতে বলা হয়েছে।