তামিমের ডাবল-সেঞ্চুরি

বাংলাবাজার পত্রিকা
খেলা: ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) দ্বিতীয় দিনে রোববার ডাবল-সেঞ্চুরি করলেন ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সেন্ট্রল জোনের বিপক্ষে ডাবল-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন ইস্ট জোনের হয়ে খেলতে নামা তামিম।

শুক্রবার শুন্য রানে অপরাজিত প্রথম দিন শেষ করেছিলেন তামিম। শনিবার দ্বিতীয় দিন ওয়ানডে স্টাইলে ষোড়শ সেঞ্চুরি ও পরে ডাবল-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি। ১২৫ বলে সেঞ্চুরি ও ২৪২ বলে ডাবল-সেঞ্চুরি করেন তামিম। এ সময় তার ব্যাট থেকে আসে ২৯টি চার।

প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটেএটিই প্রথম ডাবল-সেঞ্চুরি তামিমের। ২০১২ সালে জাতীয় লিগে পরপর দু’ম্যাচে সেঞ্চুরির দোড়গোড়ায় পৌঁছেও আউট হন তিনি। ১৯২ ও ১৮৩ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তামিম।

অবশ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ডাবল-সেঞ্চুরি রয়েছে তামিমের। ২০১৫ সালে খুলনায় পাকিস্তানের বিপক্ষে ডাবল-সেঞ্চুরি করে ২০৬ রানে আউট হন তিনি। ২৭৮ বলের ইনিংসে ১৭টি চার ও ৭টি ছক্কা হাকিয়েছিলেন তামিম।

২০১৫ সালের পর প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে সেঞ্চুরির দেখা পেলেন তামিম। জাতীয় লিগের ম্যাচে বরিশালের বিপক্ষে চট্টগ্রামের হয়ে ১৩৭ রান করেছিলেন তিনি।

এরপর প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে মাত্র দু’টি ম্যাচ খেলেন এই ওপেনার। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে রাওয়ালপিন্ডিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে শুরু হওয়া প্রথম টেস্টের আগে ডাবল-সেঞ্চুরি আত্মবিশ্বাস যোগাবে তামিমকে।

পাকিস্তানে প্রথম দফার সফরে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন তামিম। ২ ইনিংসে ১টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ১০৪ রান করেছিলেন তিনি।