দৃশ্যত

দৃশ্যত
-রত্না ঘোষ


আমি প্রায়ই বুদ্ধিমান স্বপ্ন দেখি সাধারণভাবে সেখানে জ্ঞানবুদ্ধির চর্চা করেন রুচিবান শিক্ষিতরা
তখন আমি বাইরে চলে এসে দু-হাতে মাথা টিপে ডাক্তারের পিছু পিছু ঘুরতে থাকি ডাক্তার কাঁপতে কাঁপতে আমার রোগা রোগা পা দুটো ঠাণ্ডা জলে ডুবিয়ে রাখে

এসব কথা মনেপ্রাণে বিশ্বাস না করলে আপনি আমাকে অভিনন্দন জানাতে পারেন


যেভাবে আমি বলতে চাই, আমার, শব্দরা সেভাবে বলতে পারে না। আমার ইচ্ছের সাথে একটা প্রবল সম্পর্কহীন সম্পর্ক তার। এতদিনে আবিষ্কার বলতে রোজকার অস্তিত্বশীলতা আর আনন্দবোধ তার নতুন নতুন চিহ্নের মোড়ক ছিঁড়ে ফেলা, যা, আমাকে, অবধারিতভাবে প্রতিমুহুর্তে নতুন কিছু দেখায়

একবার লাল পিঁপড়ের স্বার্থে অসতর্কের অসুখ মৃত্যুকথা ছিনিয়ে এনেছিল । কোনো কোনো পাগলের কারখানায় মানুষ’ও তৈরি হয়

এসব দৃশ্যে তোমাকে মানায় না বলে, অপেক্ষা বসে আছে, আমি বসে আছি। শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা ও চোখের নেশা, যতক্ষণ না তাকে পাবার জন্য কোনও কৌশল অবলম্বন করি


ঘটনাগুলো কী তাড়াতাড়ি’ই না ঘটে
জীবনে
কথাগুলো কিভাবে সাজাবো
বাছবিচার ছাড়াই?

আমার পাশে এসে বসুন
বোঝার চেষ্টা করি
অনুভূতি জড়িয়ে ধরলে
কিসের হৈ চৈ
আমাদের পাশে হাঁটে?

আপনি চলে যাবেন এটা খুব খারাপ
কাল দু’জনে
আগুন জ্বালিয়ে দেব
পুড়ে ছাই হবে
ছেঁড়া নিয়তি

আতিশয্য অপ্রয়োজনীয়
প্রধান আকর্ষণ হবে ঝকঝকে নতুন