ফসলী জমির মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়, নির্বিকার প্রশাসন!

সিরাজদিখান উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের রামকৃষনদী মৌজায় ফসলি জমির মাটি ইট ভাটার জন্য কাটা হচ্ছে- বাংলাবাজার পত্রিকা

বাংলাবাজার পত্রিকা
সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ): থামছেনা ফসলি জমির মাটি কাটা। কৃষি জমি পরিণত হচ্ছে পুকুর-ডোবায়। কমছে ফসলের উৎপাদন। বেকার হচ্ছে কৃষক।

এরফলে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এসব কাজে ব্যবহার হচ্ছে গ্রামীন সড়ক। আইন অমান্য করে এসব কর্মকাণ্ড চলছে মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগি জমির মালিকরা জানান, উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের খিদিরপুর ও রামকৃষনদী মৌজায় ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে নেয়া হচ্ছে ইটভাটায়।

ভূমিদস্যুরা জমির মাটি ভেকু মেশিন দিয়ে ১০/১২ ফুট গভীরে এমন খাড়াভাবে কাটে যাতে অল্প কয়েক দিনের মধ্যে পার্শ্ববতী জমির মাটি ভেঙে পরে।

গুয়াখোলা গ্রামের ভুক্তভোগী আলী হোসেন বলেন, আমার পাশের জমিতে মাটি কাটার ফলে আমার জমি ভেঙ্গে গেছে। জমিতে সেচের পানি আটকে রাখা যাচ্ছেনা।

তিনি বলেন, জমিতে ফসল ফলানো যাবেনা। বিষয়টি আমি উপজেলা প্রশাসনকে মাটি কাটার পূর্বেই অবহিত করেছি কিন্তু কোন লাভ হয়নি।

আলী হোসেন জানান, আবার মাটিভর্তি ট্রাক ও ট্রলিগুলো নেয়া হচ্ছে গ্রামীন ও ইউনিয়ন সড়ক দিয়ে। ফলে রাস্তাগুলো উচু-নিচু এবরো-থেবরো ও বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে।

এলাকা ধুলা-বালুতে একাকার হয়ে যায়। বাড়ছে জনমনে ক্ষোভের সঞ্চার। এ অবস্থায় দিশেহারা ও অসহায় জীবন যাপন করছে ভুক্তভোগি জমির মালিক ও এলাকাবাসী।

মাটি লুটের ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় ইতোমধ্যে কয়েকজন কৃষককে ধমকি দিয়ে ভয় দেখানো হয়েছে।

স্থানীয় প্রশাসনকে বিষয়টি জানালেও কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। লতব্দি গ্রামের মিরাজ হোসেন বাতাব্বর বলেন, প্রকাশ্যে দিনে রাতে এভাবে মাটি সন্ত্রাসের এমন ঘটনা আমার জীবনে দেখিনি। সরকারি দলের প্রভাব খাটিয়ে মাটি লুটপাট চলছে হরদমে।

সরকারি গেজেটে প্রকাশিত মাটির ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ ও হ্রাসকরণ ২০১৩ সালের ৫৯ নং আইনের ৫ ধারা অনুযায়ী কোন ব্যক্তি ইট প্রস্তত করিবার উদ্দেশ্য কৃষি জমি হইতে মাটি কাটিয়া বা সংগ্রহ করিয়া ইটের কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার করিতে পারিবেন না।

যদি কোন ব্যক্তি আইনের এই ধারা লঙ্ঘন করেন তাহা হইলে তিনি অনধিক ২ (দুই) বৎসরের কারাদণ্ড বা ২ (দুই) লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।

আবার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক নির্মিত বা ইউনিয়ন বা গ্রামীন সড়ক ব্যবহার করিয়া কোন ব্যক্তি ভারি যানবাহন দ্বারা ইট বা ইটের কাঁচামাল পরিবহন করিতে পারিবেন না।

যদি কোন ব্যক্তি আইনের এই ধারা লঙ্ঘন করেন তাহা হইলে তিনি অনধিক ১ (এক) লাখ টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।

এতসব আইন থাকার পরও ভূমিদস্যুরা আইনের তোয়াক্কা না করে স্থানীয় প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে কিংবা মেনেজ করে এসব কর্ম চালিয়ে যাচ্ছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

বিষয়টি স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করা এবং স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় একাধিকবার প্রকাশের পর ও প্রশাসনের এই নিরব ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ করেছে এলাকাবাসীর মনে।

এ ব্যাপারে সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশফিকুন নাহার বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। উপজেলা সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় জানান, কৃষি জমির মাটি কাটার ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের পাশাপাশি ফসলি জমির উর্বরা শক্তি আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পায়।

এছাড়া ফসলি জমির মাটি কেটে নেয়ার ফলে ফসলের প্রধান খাদ্য নাইট্রোজেন, পটাশ, জিংক, ফসফরাস, সালফার, ক্যালসিয়ামসহ অর্গানিক বা জৈব উৎপাদনের জন্য অপূরনীয় ক্ষতি হয়।
এ অবস্থা থাকলে ফসলি জমিগুলো ভবিষ্যতে বন্ধা জমিতে পরিণত হবে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আহাম্মেদ সাব্বির সাজ্জাদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তিন বার ঘটনাস্থলে গিয়েছি। ভেকু ও ট্রলি ছাড়া কেউ উপস্থিত ছিলো না এ জন্য ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।