সাংবাদিক শেলু আকন্দের ওপর হামলার বিচার দাবি

বাংলাবাজার পত্রিকা
ঢাকা: জামালপুরের সাংবাদিক শেলু আকন্দের ওপর হামলার বিচার ও পর্যাপ্ত ক্ষতি পূরণের দাবি জানিয়েছে ‘মুক্ত প্রকাশ’ নামে একটি সংগঠন।

গণমাধ্যমের অধিকার বিষয়ে কর্মরত সংগঠনসমূহের নেটওর্য়াক মুক্তপ্রকাশের নেতারা জামালপুরের সন্ত্রাসীদের হামলায় মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত শেলু আকন্দের ওপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

তারা এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক বিচার, বিকলাঙ্গ শেলু আকন্দের পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ ও জামালপুরে বসবাসরত সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানান।

রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রোববার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন মুক্ত প্রকাশের প্রধান উপদেষ্টা এবং লন্ডন ভিত্তিক আর্টিকেল ১৯ এর রিজিওনাল ডিরেক্টর ফারুখ ফয়সল, মুক্ত প্রকাশ চেয়ারপারসন অধ্যাপিকা ডক্টর সৈয়দা আইরিন জামান, জেনারেল সেক্রেটারি সালিম সামাদ,

নির্বাহী কমিটির সদস্য আহমাদ উল্লাহ এবং ইফাত নওরিন মল্লিক। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সহ-সভাপতি খায়রুজ্জামান কামাল।

গত ১৮ ডিসেম্বর জামালপুরের সিনিয়র সাংবাদিক শেলু আকন্দের ওপর হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এতে তার দুপা বহু খণ্ডে ভাঙার ফলে তিনি বর্তমানে রাজধানীর শেরে বাংলা নগরস্থ পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনার পর তিনি প্রথমে জামালপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি হন কিন্তু পরবর্তীতে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তরিত হন। শেলু আকন্দ বাংলাবাজার পত্রিকার জামালপুর প্রতিনিধি এবং দৈনিক পল্লী কণ্ঠ প্রতিদিনের রিপোর্টার।

শেলু আকন্দের বড়ভাই দেলোয়ার হোসেন আকন্দ জামালপুর সদর থানায় এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় জামালপুর পৌর কাউন্সিলর হাসানুজ্জামান খান, তার ছেলে রকিব খান এবং আরো চার জন সন্দেহভাজন হামলাকারীকে আসামী করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ৪ ফেব্রুয়ারি মুক্তপ্রকাশের একটি প্রতিনিধিদল জামালপুরের সাংবাদিকদের সার্বিক নিরাপত্তা পরিস্থিতি এবং নির্যাতনের চিত্র পরিদর্শনের লক্ষ্যে জামালপুর সফর করেন।

নেতৃবৃন্দ এ সব বিষয়ে জামালপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক, এ্যাডিশনাল পুলিশ সুপার মুহাম্মদ বাছির উদ্দিন, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম এবং অন্যান্য অংশীজনদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

এরপর তারা জামালপুর সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে জামালপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে আলোচনা করেন।

জামালপুরের অধিকাংশ সাংবাদিক এই আলোচনায় অংশ নেন। নেতৃত্বে ছিলেন জামালপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি হাফিজ রায়হান সাদা এবং জেনারেল সেক্রেটারি লুৎফর রহমান এবং অন্যান্য নির্বাহীবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, জামালপুরের ৪৮ জন সাংবাদিক নিজেদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সদর থানায় জেনারেল ডায়েরি করেছেন।

ইতিপূর্বে এত অধিক সংখ্যক জার্নালিস্ট কখনো একসঙ্গে নিরাপত্তার জন্য জেনারেল ডায়েরি করেননি। এটা উদ্বেগের বিষয়। সাংবাদিকদের নিরাপত্তা দাবি জানান সংবাদ সম্মেলনে।