বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস, বাড়ছে ভয়াবহতা!

বাংলাবাজার পত্রিকা
ডেস্ক: চীনে মহামারী আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাস এবার বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে। এরফলে এর ভয়াবহতা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় এক দিনেই করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে, প্রথমবারের মতো সংক্রমণ ধরা পড়েছে ইসরায়েল ও লেবাননে।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে ইরানের আধা ডজন শহরে, মৃত্যু ঘটিয়েছে আরও দুইজনের। নতুন রোগীর সংখ্যা বেড়েছে ইতালি ও জাপানেও। জাপানের উপকূলে একটি প্রমোদতরীতে ছয়শর বেশি মানুষকে রাখা হয়েছে কোয়ারেন্টিনে। এতদিন এই ভাইরাসের প্রকোপ চীনের মধ্যেই ছিল বেশি।

কিন্তু গত কয়েক দিনে চীনের বাইরে বিশ্বজুড়ে যে গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে তাতে এ রোগের প্রাদুর্ভাব নতুন দিকে মোড় নেয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে স্ট্রেইটস টাইমস।

অস্ট্রেলিয়া অ্যান্ড নিউজিল্যান্ড ব্যাংকিং গ্রুপের এশিয়া রিসার্চের প্রধান খুন গো বলছেন, এশিয়ার অন্যান্য অংশে বিশেষ করে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ায় হঠাৎ করে এই ভাইরাস সংক্রমণ যেভাবে বেড়েছে তা উদ্বেগের।

তার মতে, এ ঘটনা এই রোগ সংক্রমণের নতুন ধাপের দিকে ইঙ্গিত করছে এবং এতে জনজীবন ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি আগে যা ভাবা হয়েছিল তার চেয়ে অনেক বেশি অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে ফেলবে।

ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ দেখা দেয়ার পর ২৯টি দেশে এই রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। তবে চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে আক্রান্তের সংখ্যা এতদিন ছিল তুলনামূলক কম। নতুন এই করোনাভাইরাসে সোয়া দুই হাজারের মতো মানুষের মৃত্যু হয়েছে, যাদের মধ্যে চীনের বাইরে রয়েছে ১৫ জন।

এই রোগ যাতে অন্যান্য দেশেও মহামারি আকার না নেয় সেজন্য এখনই সর্বোচ্চ তৎপরতা চালানো জরুরি বলে মনে করছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসাস।

তার মতে, এখনও মনে করেন এই ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকানো যাবে। তবে সুযোগগুলো ক্রমশ কমে আসছে। তাই সুযোগ পুরোপুরি শেষ হওয়ার আগেই দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।

এই ভাইরাস সংক্রমণ যে কোনো দিকে যেতে পারে বলে সতর্ক করে তেদ্রোস বলেন, যদি আমরা ঠিকভাবে কাজ করি তাহলে গুরুতর সংকট এড়াতে পারব।

তিনি বলেন, আমরা যদি সুযোগগুলো নষ্ট করি তাহলে আমাদের সামনে ভয়াবহ বিপদ। গত দুই দিনের মধ্যে ইরানে নতুন ১৮ জনের নভেল করোনাভাইরাস ধরা পড়া এবং চারজনের মৃত্যুর খবর ‘খুবই উদ্বেগের’ বলে মন্তব্য করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক।

তেহরানকে এই রোগের পরীক্ষায় কিট সরবরাহ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।