সমীকরণের নামে বিভাজন

সমীকরণের নামে বিভাজন
-সালাহউদ্দিন সালমান

খুব ভীষণ একলা লাগে, প্রচণ্ডরকম একা
চারদিক সুনসান জনমানবহীন বিদঘুটে এক পরিবেশ
যেদিকে তাকাই কি নিদারুণ অভিমান অবহেলা চোখ রাঙায়
কোন আলো আলোকিত করার নামমাত্র নেই, কেবলই সন্ধ্যে
প্রেমহীন গল্পের আবছা আঁধার জটবাঁধা গভীর ষড়যন্ত্রের এ শহর
দুহাত চেপে আমাকে কুড়ে কুড়ে খায়, গুমরে কাঁদায়।

সহস্র সময়ের উলঙ্গ জমিনে লাস্যময়ী আত্মহত্যার কিচ্ছা কাহানী
নরাধমের ধর্ষণপ্রবণ শিশ্নের উপর কাকধার্মিক রাষ্ট্রে মূকবধির আমি
আতঙ্কে অতিষ্ঠ রক্তপাতের কান্নায় নিরুপায় রাষ্ট্রযন্ত্রে দেখেও কিছু দেখিনা
ঘরে ঘরে শালিকের বুকে সাদা পালকে করে নবান্নের ধান আসে
ক্ষেতের আলপথ ধরে শ্রাবণ ধারা ভিজিয়ে যায় শিশিরে উড়ে ছোট্ট ঘাসফড়িং
দুঃখে ক্ষোভে অসুখী উড়ান আমার,আমাকে ব্যাবচ্ছেদ করে সমীকরণের নামে বিভাজনে।

অনিবার্য নয় তবুও গরমিলের মিলন খুঁজতে গিয়ে শব্দের আবডালে খুঁজি শব্দ
ছায়ার আড়ালে ছায়া, যাবতীয় নির্ভুলের নয়নে নামে গোপন মেঘের জলোচ্ছ্বাস
বহুরাতের ঘুম হারানো চোখে নিশাচর বাতাস দিয়ে যায় নিকোটিননিশির ঘ্রাণ
নিঃশব্দ চৌকাঠে পরজীবী গাছের লতায় নিঃশব্দে হই নিষ্প্রাণ।