এবার ধেয়ে আসছে বন্যা

Flood

বাংলাবাজার পত্রিকা
ডেস্ক: করোনা ভাইরাস আতঙ্কের মধ্যে এ মাসের শেষ দিকে অথবা জুলাইয়ের প্রথম ভাগে দেশে বন্যার শঙ্কা করা হচ্ছে।

মৌসুমি বায়ুর সক্রিয়তায় প্রবল বৃষ্টিতে আগামী দুই সপ্তাহে ব্রহ্মপুত্র-যমুনা অববাহিককায় নদ-নদীর পানি বাড়ার আভাস থাকায় সংলগ্ন জেলার নিম্নাঞ্চলে মধ্যমেয়াদি বন্যা হতে পারে বলে বৃহস্পতিবার পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, বাংলাদেশ ও উজানের অববাহিককায় ভারিবর্ষণ হচ্ছে এবং নদ-নদীর পানি বাড়ছে।

ব্রহ্মপুত্র-যমুনায় দুই সপ্তাহ ধরে তা অব্যাহত থাকতে পারে। ধারাবাহিক পানি বাড়ার কারণে জুনের শেষ সপ্তাহে বা জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে ব্রহ্মপুত্র-যমুনা অববাহিকার বিভিন্নস্থানে বিপদসীমা অতিক্রম করবে।

এর ফলে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ, পাবনার জেলার নিম্নাঞ্চলে স্বল্প থেকে মধ্যমেয়াদি বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

এ সময়ে উজানের পাহাড়ি ঢলের আভাস রেখে প্রতিবেদনে জানানো হয়, দেশের উত্তরাঞ্চলে তিস্তা ও ধরলা নদীর পানি দুই সপ্তাহে দ্রুত বাড়তে পারে।

বৃষ্টিপাতের ওপর নির্ভর করে কিছু স্থানে পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে এ সময়, যা এ এলাকার নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদি বন্যা সৃষ্টি করতে পারে।

পানি বাড়লেও গঙ্গা-পদ্মা অববাহিকায় বিপদসীমা অতিক্রমের শঙ্কা নেই আপাতত, তবে জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে।

মেঘনা অববাহিকার নদ-নদীতেও এক সপ্তাহে পানি দ্রুত বাড়তে পারে। আর জুনের শেষ সপ্তাহে সুরমা-কুশিয়ারা ও মেঘনা অববাহিকায় পানি কোথাও কোথাও বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে।

দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় পার্বত্য অববাহিকায় হালদা, সাঙ্গু ও মাতামুহুরীতে কোথাও কোথাও পানি বিপদসীমার ওপরে যেতে পারে জুনের শেষ সপ্তাহে।

জুন মাসের দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন, মৌসুমি ভারিবর্ষণের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলের কিছু স্থানে স্বল্পমেয়াদি বন্যা হতে পারে।