মেহেরুন বিনতে ফেরদৌস সিথীর কাঠগোলাপ

কাঠগোলাপ
-মেহেরুন বিনতে ফেরদৌস সিথী

কত প্রতিশ্রুতি জমা দিয়েছিলাম দুজন দুজনকে!
ছেড়ে যাবো না! দূরে যাবো না!
অন্য কারোর চোখে তাকাবো না!

অন্য কারোর ঘর করবো? অসম্ভব!

এখন দেখো!
কেমন দু’ মেরুতে দুজনের বসবাস!
আমার আকাশ জুড়ে আলো ফুটলে
তোমার আকাশে সন্ধ্যা নামে।

ক্লান্তিতে যখন আমি গা এলিয়ে দেই
তুমি তখন ছুটতে ছুটতে বের হও!
অথচ এমন হবার তো কথা ছিল না!
কথা ছিল এক সাথে সকাল দেখার!
ঘুৃম ভেঙ্গে তোমার কামুক চাহনি দেখবো,
তারপর ভাঙ্গচুর করা আবেগে দুজন আত্মসমর্পণ করবো।

কি এমন ছিলো না আমাদের চাওয়া টুকুন?
একসাথে রাতের তারা গুনবো, আকাশ দেখবো মিলেমিশে।

দুটো ডাল ভাত খেয়ে তোমার বুকের ওম নিয়ে কখন যে ঘুমে হারাবো টেরই পাবো না!
তোমার সংগে মাঝ হাওরে জোছনা দেখার কথা ছিলো।
মনে আছে?
অথচ দেখো আমাদের সমস্ত ভাবনাগুলো আজ এক হাজার আলোকবর্ষ দূরে চলে গেলো।

আচ্ছা সফেদ মেঘে এদেশ ওদেশ ঘুরে কোনো অসাধারণ মেয়ে জুটলো অবশেষে?
অফিস শেষে ফিরলে বাসায় এক গ্লাস জল এগিয়ে দেয়?
গায়ের গন্ধ টেনে নিতে চায় আমার মতোন!
খোঁপায় ফুল গুঁজে দাও ঐ অসাধারণ মেয়ের?
খুব পড়ুয়া নাকি আমার মতো বি.এ পাশ!
তোমায় বলছি কি!
দুরন্ত এই পায়ে দেখো কেমন শিকল জড়িয়ে নিলাম!
আটপৌরে শাড়িতে, কাজল চোখে, চড়া রং এর লিপস্টিকে কেমন স্বামী সোহাগিনী হয়ে উঠেছি।
একজন আদর্শ স্ত্রীর পরীক্ষা দিয়ে যাই রোজ!
চন্দ্রমল্লিকা হয়ে ফুটে উঠি মধ্যেরাতে!
অথচ আমার মানুষটার কাঠগোলাপ কি ভীষন প্রিয়!