পৌর সভায় আওয়ামী লীগ ১৭, বিএনপি ২

বাংলাবাজার পত্রিকা
ডেস্ক: দেশের ২৪ পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে সোমবার। এরমধ্যে ১৭ টিতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ জয় লাভ করেছে, দুইটিতে বিএনপি এবং অন্যান্য প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন ৩টি পৌরসভায়।

একটি পৌরসভার ফল মঙ্গলবার ঘোষণা করা হবে, আর একটিতে প্রার্থী মারা যাওয়ায় ফল ঘোষণা স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সাকসেসফুল হয়েছে বলে দাবি করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করেছে বিএনপি।

সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে টানা ভোট গ্রহণ। ২৪টি পৌরসভাতেই ভোট গ্রহণ হয়েছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএমে)।

বিভিন্ন স্থানে ভোটকেন্দ্রে হাতাহাতি ও বিক্ষোভ হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ।

এর মধ্যে ঢাকার ধামরাইয়ে এক সাংবাদিকের ফোন কেড়ে নিয়ে প্রিসাইডিং অফিসার আওয়ামী লীগ কর্মীকে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পঞ্চগড়ে রিটার্নিং অফিসারের গাড়িসহ ৫ মোটরসাইকেল ভাঙচুর, পাবনায় ভোট দেখতে গিয়ে নৌকা সমর্থকের মৃত্যু, লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল, খুলনায় ভোটকেন্দ্রে হাতাহাতি, পুলিশের লাঠিপেটা ও খুলনায় ভোট শেষ হওয়ার আগেই করোনায় বিএনপি প্রার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

দিনশেষে ২২টি পৌরসভায় ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ১৭টিতে আওয়ামী লীগ, তিনটিতে স্বতন্ত্র এবং দুটিতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

এ ছাড়া ধামরাইয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ভোটে এগিয়ে থাকলেও মঙ্গলবার এ পৌরসভার ফল ঘোষণা করা হবে।

অন্যদিকে ভোট গ্রহণ চলাকালে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আবুল খায়ের খানের মৃত্যুর কারণে খুলনার চালনা পৌরসভা নির্বাচনের মেয়র পদের ফলাফল ঘোষণা স্থগিত করা হয়েছে।