দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় ২ হাজার কোটি টাকা

বাংলাবাজার পত্রিকা
ডেস্ক: সরকার চলমান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার কার্যক্রমকে আরও বাড়িয়ে তোলার লক্ষ্যে একটি বড় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

দ্রুত প্রতিক্রিয়া জানাতে আধুনিক সরঞ্জাম সংগ্রহ এবং সম্ভাব্য বিপর্যয়ের সময় ও পরে জরুরি উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করতে ২ হাজার ২৭৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকার প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থানা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর এ লক্ষ্যে একটি ব্যয় নির্ধারণ করেছে যা ‘অনুসন্ধান, উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা এবং ভূমিকম্প ও অন্যান্য বিপর্যয়ের সময় জরুরি যোগাযোগ স্থাপনের জন্য সরঞ্জাম সংগ্রহ (তৃতীয় ধাপ)’ শীর্ষক একটি ২ হাজার ২ শ’ ৭৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকার খসড়া প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে।

প্রকল্পের ক্ষেত্রটি সমগ্র বাংলাদেশ। তবে অগ্রাধিকার অঞ্চল ঢাকা, চাট্টগ্রাম, সিলেট এবং রংপুর বিভাগ।

প্রকল্পটি ২০২৩ সালের অক্টোবরের মধ্যে শেষ হবে আশা করা হচ্ছে বলে পরিকল্পনা কমিশনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান।

এই কর্মকর্তা বলেন, প্রকল্পটি আজ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের কার্যনির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্বে উত্থাপন করার কথা রয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহসিন বলেন, এই প্রকল্প খুবই উপযুক্ত যেহেতু বাংলাদেশ একটি দুর্যোগপ্রবণ দেশ এবং এই ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়ন ভূমিকম্পের মতো যেকোন বিপর্যয়ের ক্ষেত্রে জরুরি অনুসন্ধান ও উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করতে সাহায্য করবে।

মহসিন আরও বলেন, এই প্রকল্পটি দেশের দুর্যোগপ্রবণ প্রকৃতির কথা বিবেচনা করে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এর আগে প্রকল্পের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে সশস্ত্র বাহিনী এবং ফায়ার সার্ভিস এবং সিভিল ডিফেন্সের জন্য প্রথম দিকে ২২০ কোটি টাকার আধুনিক উদ্ধার সরঞ্জাম সংগ্রহ করা হয়েছিল।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব বলেন, প্রকল্পের তৃতীয় ধাপের আওতায় সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি (বিডিআরসিএস) এবং সিপিপিসহ ১০টি সরকারি বাহিনী ও এজেন্সিগুলোকে উদ্ধার সরঞ্জামসহ আধুনিক সরঞ্জামাদি সরবরাহ করা হবে।