রপ্তানি আয়ে হোঁচট

বাংলাবাজার পত্রিকা
ডেস্ক: করোনা ভাইরাস মহামারিতে গত এপ্রিলে রপ্তানি আয় তলানিতে পৌঁছলেও এরপর ধীরে ধীরে বাড়ছিল, তবে ডিসেম্বরে এসে আবার হোঁচট খেয়েছে।

করোনা ভাইরাস মহামারিকালে বিদায়ি বছরের শেষ মাসে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৩১ কোটি ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ।

এই অঙ্ক ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের চেয়ে ৬ দশমিক ১১ শতাংশ কম। আর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম ৬ দশমিক ১৩ শতাংশ।

ডিসেম্বরের এই ধসের কারণে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে সার্বিক রপ্তানি কমেছে শূন্য দশমিক ৩৬ শতাংশ।

লক্ষ্যের চেয়ে আয় কমেছে ২ দশমিক ২৫ শতাংশ। অথচ মহামারির মধ্যেও অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে অর্থাৎ জুলাই-নভেম্বর সময়ে ১ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি ছিল রপ্তানি আয়ে।

ইউরোপ-আমেরিকায় সংক্রমণের যে দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে, তার প্রভাবেই রপ্তানি আয় হোঁচট খেয়েছে বলে মনে করছেন রপ্তানিকারক ও অর্থনীতি গবেষকরা।

দেশের রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত পোশাক শিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি এভিন্স গ্রুপের চেয়ারম্যান আনোয়ার-উল আলম চৌধুরী পারভেজ বলেন, দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে বিশ্ববাজারে চাহিদা কমে এসেছে।

নতুন রপ্তানি আদেশ খুব বেশি আসছে না। যুক্তরাজ্যে নতুন ধরনের করোনা ভাইরাস নতুন আতঙ্কের জন্ম দিয়েছে। কবে নাগাদ এ অবস্থা কাটবে বলা যাচ্ছে না।

আগামী কয়েক মাস পরিস্থিতি খারাপই যাবে বলেই মনে করেন বাংলাদেশ চেম্বারের সভাপতি পারভেজ।

নিট পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেমও একই কথা বলেন।

বিভিন্ন দেশে লকডাউনের কারণে বিক্রি না হওয়ায় ক্রেতাদের কাছে আগের পণ্য মজুত রয়ে গেছে। এ অবস্থায় আগামীতে রপ্তানি আদেশ আরও কমবে বলে মনে হচ্ছে।

বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের প্রায় পুরোটাই আসে পোশাক খাত থেকে।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এই নেতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকবে বলে মনে হচ্ছে।

তবে কভিড-১৯ মহামারির আগে গত অর্থবছরেও যে দেশে রপ্তানি আয় কমেছিল, তা মনে করিয়ে দিয়েছেন অর্থনীতির এই গবেষক।

তিনি বলেন, ‘ছয় মাসে দশমিক ৩৬ শতাংশ রপ্তানি আয় কমা খুব বেশি বিচলিত হওয়ার মতো বিষয় নয়। অর্থবছর শেষে যদি সামান্য প্রবৃদ্ধিও থাকে, সেটাকেই আমি বড় অর্জন বলে মনে করব।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) মঙ্গলবার যে হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) পণ্য রপ্তানি থেকে বাংলাদেশ এক হাজার ৯২৩ কোটি ৩৪ লাখ (১৯.২৩ বিলিয়ন) ডলার আয় করেছে।

এ ছয় মাসে লক্ষ্যমাত্রা ধরা ছিল এক হাজার ৯৬৭ কোটি ৬০ লাখ ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল এক হাজার ৯৩০ কোটি ২১ লাখ ডলার।

সর্বশেষ ডিসেম্বর মাসে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৩১ কোটি ডলার আয় হয়েছে; লক্ষ্য ছিল ৩৫২ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে আয় হয়েছিল ৩৫২ কোটি ৯১ লাখ ডলার।