শীতকালীন শাকসবজিতে ভরপুর হাট-বাজার

winter-vegetable

বাংলাবাজার পত্রিকা
কুমিল্লা: শীতকালীন শাকসবজিতে ভরপুর হাট-বাজার। দামও হাতের নাগালে। কুমিল্লার বিভিন্ন কাঁচাবাজার ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা গেছে, বাজারে ১টি ভালো মানের ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়। একই রকম মূল্যে বিক্রি হচ্ছে বাঁধাকপি। অন্য বছরের এ সময় বাজারে আসা নতুন আলু ৮০ থেকে ৯০ টাকায় বিক্রি হলেও এ বছর ৪০ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর পুরাতন আলু বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়। দাম কম থাকায় ক্রেতারাও খুশি।

নিমসার পাইকারী বাজারে কথা হয় হাসান মিয়া নামের এক ক্রেতার সঙ্গে। তিনি বলেন, গত মাস থেকে বাজারে শীতকালীন সব ধরনের শাকসবজি বেশি পাওয়া যাচ্ছে। গত বছরের এ সময়ের তুলনায় এ বছর দাম কমই মনে হচ্ছে। তাই বেশি করে শীতের সবজি কিনলাম। তিনি জানিয়েছেন, এ বাজারে আজ শিম ৩০ টাকা ও বরবটি ৪০ টাকা দরে কিনেছেন।
পালং শাক কিনেছেন আঁটি ১০ টাকা দরে। বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় গত সপ্তাহের তুলনায় দাম কমেছে বলে জানালেন একই বাজারের সবজি বিক্রেতা আলমগীর।
তিনি জানান, সবজির দাম আরও কমবে। সুলভ মূল্যে সাধারণ মানুষ শীতকালীন শবজি খেতে পারবেন। শহরের রাজগঞ্জ কাঁচাবাজারের বিক্রেতা মিজান মিয়া বলেন, এ সপ্তাহে দাম বেশি নয়, সবজির বাজার ভালো বলতে হবে। দাম এর চেয়ে কমে গেলে কৃষক ও খুচরা ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি জানিয়েছেন, সবজির দাম বাড়ে-কমে উৎপাদন ও সরবরাহের কারণে। চলতি বছর কুমিল্লায় সবজি আগেভাগে ফলন হওয়ায় বাজারে আসতে শুরু করেছে। যে কারণে দাম অনেকটা কমে গেছে।

গত মাসে জেলার বাজারগুলোয় কাঁচা মরিচের দাম ছিল প্রতি কেজি ১০০ থেকে ১২০ টাকা। এ সপ্তাহে বাজারে ৫০ থেকে ৬০ টাকায় মিলছে ভালো মানের কাঁচা মরিচ। এ ছাড়া শসা ৩০ টাকা, শালগম ৩০ টাকা, মূলা ৩০ টাকা, পেঁপে ২০ টাকা, বেগুন ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে এসেছে দেশি টমেটো। বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা কেজিতে। আর আমদানি করা ভারতীয় টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। তবে দেশি টমেটোর চাহিদা বেশি বলে জানান দোকানিরা।