কোর্টে হাজিরা দেওয়ায় প্রতিপক্ষের হামলা, আহত ১০

নারায়ণগঞ্জ কোর্টে প্রতিপক্ষের হামলায় সিরাজদিখানের ১০জন আহত- বাংলাবাজার পত্রিকা

বাংলাবাজার পত্রিকা
সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ): মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থেকে নারায়ণগঞ্জ কোর্টে মামলার হাজিরা দিতে যাওয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় ১০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার আকবরনগর গ্রামের চিহ্নিত ভূমিদস্যু ও হত্যা মামলার আসামি সামেদ আলী ও তারপাঁচ ছেলে এই হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার বেলা ১১ টায় এ হামলা চালানো হয়।

এরআগে একটি মামলায় নারায়ণগঞ্জ কোর্টে হাজিরা দিতে যান সিরাজদিখান উপজেলার বালুরচর ইউনিয়নের আলী আকবরনগর গ্রামের হাজী নাসির উদ্দিনের ছেলে বুলবুল আহমেদ, মোঃ ইমরান, হাজী নুরুল ইসলামের ছেলে সাজ্জাদ নুর, হাজী আব্দুল আলীর ছেলে মনির, জাকির সহ আরও কয়েকজন।

এ সময় কোর্টের বাইরে আগে থেকে ওতপেতে থাকা সামেদ আলীর পাঁচ ছেলে আবদুল গনী, মো. আরিফ, সজিব, রাজিব, হৃদয়, ভাতিজা জাহিদসহ তাদের ভাড়া করা ২০-৩০ জন সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্রসহ তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।

এতে বুলবুল, সাজ্জাদ নুর,মনির, সুমন, ফারুক, ও শহীদসহ ১০ জন আহত হন। আহতদের প্রথমে নিকটস্থ হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হামলায় আহত সাজ্জাদ নুর বলেন, আমরা ক’জন কোর্টে হাজিরা দিয়ে গেট থেকে বেড় হয়ে গাড়ীর জন্য দাঁড়িয়েছিলাম, কিছু বুঝে ওঠার আগেই সামাদ আলীর পাঁচ ছেলে, ভাতিজা ও তাদের ভাড়াকরা সন্ত্রাসীরা আমাদের উপর হামলা চালায়। এতে আমিসহ আমাদের পরিবারের ১০ জন মারাত্মকভাবে আহত হয়। আমরা এই সন্ত্রাসী হামলার বিচার চাই।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সামেদ আলী ও তার পরিবারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে ও তারা ফোনকল রিসিভ করেনি।

এ ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রফিকউজ্জামান বলেন, আমরা ঘটনাটি শুনেছি, কোর্টে হাজিরা দিতে গিয়ে দুই পক্ষের লোকজনের মাঝে হামলা-পাল্টাহামলার ঘটনা ঘটেছে। শুনেছি দুই পক্ষের লোকই নাকি হাসপাতালে আছে।

এ ব্যাপারে সিরাজদিখান থানার ওসি মোহাম্মদ বোরহানউদ্দিন বলেন, নারায়ণগঞ্জ কোর্টে প্রতিপক্ষের হামলার বিষয়ে মুঠোফোনে আমাকে একটা পক্ষ অবগত করেছে। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেবো।