শোয়াইব শাহরিয়ারের তিনটি কবিতা

নদীগর্ভে

বড় শখ করে
একদিন নদী এঁকেছিলাম
বর্ষায় পোয়াতি হতো
শীতে শুকাতো…

বড় শখ করে নদী এঁকেছিলাম…

সীমারেখা ভেদ করে
নদীতে ডুবে যেতাম
নিজস্ব ভঙ্গিমায় আচানক হাসতাম

এখন নদী আছে, জল নেই
জল আছে, নদী নেই

মনে পড়ে, বড় শখ করে জীবন এঁকেছিলাম!

স্বপ্ন

কর্কটে, মায়ের প্রস্থানে ঘরটাই কবর হয়ে যায়—!

এদিকে প্রিয়তমা, তুমি—

বাড়ির দিকে আসতে চাচ্ছো। অথচ অন্য দিকে নিয়ে যাচ্ছি। বারবার বলছো, ‘ওটাই তোমার বাড়ি। চলো, ওদিকে যাই।’ আমি তবু অন্য দিকে নিয়ে যাচ্ছি!

এই স্বপ্নের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে,
একদিন সন্ন্যাসী হয়ে যাবো।
আর প্রিয় মানুষের প্রস্থানে—
তুমিও সন্ন্যাস জীবনের স্বপ্ন দেখতে থাকবে।

কুয়াশাগ্রাম

কুয়াশামাখা ভোরে
ধানের চারার ফাঁকে
নববধুর অপেক্ষারত
নিঃস্বঙ্গ আলপথ ধরে
চলে যাবো আমাদের
অনাগত সন্তানের কাছে

সংসার যদিও কুয়াশাগ্রাম
বুকশেলফ অনুজ্জ্বল
তবু চলে যাবো দুঃসাহসে
প্রগাঢ় ধবল দুঃখের ধারে

এমন কুয়াশাগ্রামে
ভাবতে ভাল লাগে
তোমার স্তনে ঘুমিয়ে
আছে আমার পৃথিবী।