চীনে যুদ্ধ প্রস্তুতি

বাংলাবাজার পত্রিকা.কম
ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসিকে চীনের হুমকির পরও তাইওয়ান সফর করায় অঞ্চলটিতে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। প্রতিক্রিয়া জানাতে তাইওয়ান ঘিরে থেকে আকাশ ও সমুদ্রে ছয় দিনের নজিরবিহীন সামরিক মহড়া চালাতে শুরু করেছে চীন।

তাইওয়ান নিয়ে আমেরিকার উস্কানির বিরুদ্ধে এই মহড়াকে রীতিমতো যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে দেখতে শুরু করেছেন সামরিক বিশ্লেষকরা।

মহড়া থেকে যে কোনো সময় সংঘাতে রূপ নেয়ার শঙ্কা রয়েছে বলে সতর্ক করেছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা।
এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে তাইওয়ানের মাৎসু দ্বীপপুঞ্জের কাছে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে চীনের সামরিক বাহিনী। এই দ্বীপটির সঙ্গে চীনের উপকূল রয়েছে।

অবশ্য কোথায় মহড়া চালাবে, সে ঘোষণা আগেই দিয়েছিল চীন। সে ঘোষণা অনুযায়ী নির্দিষ্ট এলাকায় গিয়ে আঘাত হেনেছে এসব ক্ষেপণাস্ত্র।

অন্যদিকে পশ্চিম উপকূল থেকে চীনের বিমান তাড়াতে ফ্লেয়ার ছুড়েছে তাইওয়ানের সামরিক বাহিনী।
তাইওয়ান সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল চ্যাং জোন-সুং জানিয়েছেন, বুধবার গভীর রাতে কিনমেন দ্বীপপুঞ্জের কাছে দুটি চীনা ড্রোন দেখা গিয়েছিল এবং দুইবার এলাকায় প্রবেশ করেছিল।

তিনি বলেন, ‘আমরা অবিলম্বে সতর্কতা জারি করতে এবং তাদের তাড়িয়ে দিতে ফ্লেয়ার ছুড়ি। এতে তারা ঘুরে দাঁড়ায়। তারা আমাদের এলাকায় এসেছিল, আমরা তাদের আমাদের এলাকা থেকে তাড়িয়ে দিয়েছি। আমাদের একটি স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি আছে। তারা প্রবেশ করলে আমরা প্রতিক্রিয়া জানাব।’

এর আগে বুধবার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফর শেষ করার কিছুক্ষণ পরই দেশটির স্বঘোষিত আকাশ-প্রতিরক্ষা সীমার ভেতরে ঢুকে পড়ে ২৭টি চীনা যুদ্ধবিমান।

তাইওয়ান সফরে গিয়ে বেজিংয়ের তিয়েনআনমেন স্কোয়ার এবং অধিকৃত তিব্বতে চীনা সেনার অত্যাচারের কথা বলেছেন পেলোসি।

চীনকে অখুশি করেছে মার্কিন শীর্ষ নেত্রীর এই সফর উত্তেজনা বাড়িয়েছে নিঃসন্দেহে। ক্ষুব্ধ চীন তাইওয়ান প্রণালীকে ‘বিপজ্জনক অঞ্চল’ ঘোষণার পাশাপাশি মার্কিন দূতকে তলব করেছে।