আলটিমেট ক্ষতি কাস্টমারের

Development

রিয়াজুল হক
একটি সুপরিচিত রেডিমেট কাপড়ের শোরুম এ গিয়েছিলাম (আউটলেট এর নামটা উল্লেখ করছি না)। উদ্দেশ্য ছিল শীতের কাপড় কেনা। দেশের বড় শহর গুলোতে এই ব্র্যান্ডের আউটলেট আছে।

যাই হোক, জ্যাকেট পছন্দ করে কাউন্টারে গেলাম। এই আউটলেটে আমি আগে বিকাশে পেমেন্ট করে কাপড় কিনেছি।

আমি ম্যানেজারকে জিজ্ঞেস করলাম, বিকাশে পেমেন্ট করলে কোন ক্যাশব্যাক অফার আছে কিনা?

ম্যানেজার আমাকে না বোধক উত্তর দিল এবং আরও জানিয়ে দিল যে, অফার আসলে সেটা একটা পোস্টারের মাধ্যমে টানিয়ে দেয়া হয়, যাতে কাস্টমাররা বিষয়টা জানতে পারে।

আমার বিকাশ একাউন্টে কিছু টাকা ছিল। ভাবলাম খরচ করে ফেলি। আমি বিকাশে পেমেন্ট করি এবং পেমেন্ট করার পরেই দেখলাম ৫% পার্সেন্ট ক্যাশব্যাক এসেছে।

ম্যানেজারকে জিজ্ঞেস করলাম, আপনি বললেন ক্যাশব্যাক অফার নেই। অথচ ৫% ক্যাশব্যাক এসেছে।

ম্যানেজার বললেন, আমরা জানি না।

একটু অবাক হলাম। কাস্টমার আকৃষ্ট করার জন্য যে প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন অফারের ব্যবস্থা করে, সেই প্রতিষ্ঠানেরই কোন একটি আউটলেটের ম্যানেজার যদি বলে আমাদের জানা নাই বিষয়টা সত্যিই মাথায় ঢোকে না।

সাথে থাকা একজন বললেন, এখানে একটা চালাকি থাকতে পারে। যেমন ধরুন, আপনি ২,০০০ টাকার একটি শার্ট কিনলাম।

বিকাশের অফারটি না জানার কারণে আপনি নগদ টাকায় পেমেন্ট করলেন অর্থাৎ কাস্টমার হিসেবে আপনি ১০০(৫ পার্সেন্ট হিসেবে) টাকা ক্যাশব্যাক পাওয়ার কথা থাকলেও পাবেন না।

এখন এই আউটলেটের ম্যানেজার যদি পরবর্তীতে একটি বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে পেমেন্ট দেখায় তাহলে সে নিজেই ১০০ টাকা ক্যাশব্যাক নিতে পারবে।

যদি দিনে ২০ জন কাস্টমারের সাথে এরকম হয়ে থাকে, সেটা কিন্তু পুরোপুরি অনৈতিক আয়। আর বেশ কিছু কাস্টমার আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হলেন।

আর যদি কেউ কোনো অনিয়মের সাথে জড়িত নাও থাকে, শুধুমাত্র তথ্য না পাবার কারণে প্রাপ্য আর্থিক সুবিধা থেকে ক্রেতাই বঞ্চিত হচ্ছেন।

লেখক: উপ পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক।