মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

৪৮ দিন পর নির্ভয়ে ঘুমাল গাজাবাসী

৪৮ দিন পর নির্ভয়ে ঘুমাল গাজাবাসী

ফিলিস্তিনের গাজায় চার দিনের যুদ্ধবিরতি চলছে। শর্ত অনুযায়ী, ইসরাইল ও হামাস পরস্পর জিম্মি ও বন্দী বিনিময় শুরু করেছে। সেই সঙ্গে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় সব ধরনের হামলা বন্ধ রেখেছে ইসরাইলি বাহিনী। এ পরিপ্রেক্ষিতে ৪৮ দিন পর শুক্রবার দিবাগত রাতে নির্ভয়ে ঘুমাতে পেরেছে গাজাবাসী। দক্ষিণ গাজার খান ইউনিসে রয়েছেন আল–জাজিরার প্রতিনিধি হানি মাহমুদ।

তিনি বলেন, সাময়িক যুদ্ধবিরতি কিছুটা স্বস্তি এনেছে। কারণ সাত সপ্তাহ ধরে প্রতি রাতে গাজার কোথাও না কোথাও হামলা হয়েছে, প্রাণহানি ঘটেছে। শুক্রবার দিবাগত রাত ছিল ভিন্ন। এ রাতে হামলা, প্রাণহানি, কান্না বন্ধ ছিল।

হানি মাহমুদ আরও বলেন, ৪৮ দিন পর এ রাতে গাজাবাসী নির্ভয়ে ঘুমাতে পেরেছে। ঘুমের মধ্যে ইসরাইলি বোমার আঘাতে প্রাণ হারানোর ভয় তাদের তাড়া করে ফেরেনি। তবে গাজাবাসী মনে করছে, এটা যুদ্ধবিরতি পূর্ণাঙ্গ নয়। সাময়িক বিরতির পর আবার ইসরাইলি বাহিনী তাদের ওপর হামলে পড়বে—এমনটাই বললেন হানি মাহমুদ। তার মতে, গাজায় প্রায় ১৭ লাখ বাস্তুচ্যুত মানুষ মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে।

জীবন বাঁচাতে অবরুদ্ধ উপত্যকায় এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ছুটে বেড়াচ্ছে তারা। কেউই নিজ বাড়িতে ফিরতে পারছে না।

হানি মাহমুদ বলেন, গাজাবাসীর মধ্য হতাশা ভর করেছে। সেই সঙ্গে তারা ক্ষোভে ফুঁসছে। তাদের মনে প্রশ্ন, নিরাপদে বাড়ি ফেরার সুযোগ দেয়ার শর্তটি কেন যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে যুক্ত করা হয়নি? এ জন্য তারা হতাশ।

ইসরাইলি বাহিনী উত্তর ও দক্ষিণ গাজার মধ্যে একটা সামরিক সীমা টেনে রেখেছে। সেটা পেরিয়ে কাউকে যাতায়াত করতে দেয়া হচ্ছে না। শুক্রবার কয়েকজন ফিলিস্তিনি জোর করে উত্তর গাজায় যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। ইসরাইলি বাহিনীর হাতে তাদের প্রাণ যায়। এ সময় কয়েকজন আহত হন।

এ বিষয়ে হানি মাহমুদ বলেন, এসব ফিলিস্তিনির বাড়ি উত্তর গাজায়। তারা ফেলে আসা বাড়িঘর দেখার জন্য সেখানে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।

সম্পাদক : জোবায়ের আহমেদ