শুক্রবার, ৩১ মে, ২০২৪

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মহড়া, যুদ্ধবিমান পাঠালো চীন

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মহড়া, যুদ্ধবিমান পাঠালো চীন

তাইওয়ানের সামরিক মহড়া ঘিরে শক্ত পদক্ষেপ নিয়েছে চীন। দ্বীপটির দিকে ফাইটার জেট এবং বোমারু বিমানসহ কয়েক ডজন যুদ্ধবিমান পাঠিয়েছে বেইজিং। শনিবার তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এ দাবি করেছে। তাইওয়ানের বার্ষিক হান কুয়াং মহড়া আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে। এ সময় দ্বীপের সামরিক বাহিনী আক্রমণ প্রতিরোধের জন্য যুদ্ধ প্রস্তুতির মহড়া করবে।

মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, চীনা পিপলস লিবারেশন আর্মি শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার সকাল ৬টার মধ্যে তাইওয়ানের আশেপাশে ৩৭টি বিমান ও সাতটি নৌবাহিনীর জাহাজ পাঠিয়েছে। এসব বিমানের মধ্যে আছে জে-১০ এবং জে-১৬ ফাইটার এবং এইচ-৬ বোমারু বিমান। শনাক্ত করা যুদ্ধবিমানগুলোর মধ্যে ২২টি তাইওয়ান প্রণালীর মধ্যরেখা অতিক্রম করেছে।

তাইওয়ান এবং চীন ১৯৪৯ সালে একটি গৃহযুদ্ধের পর বিভক্ত হয়। এতে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির নিয়ন্ত্রণ শেষ হয় দ্বীপটিতে। তাইওয়ান কখনই গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের অংশ ছিল না। তবে বেইজিং-এর আশা, এটি একদিন অবশ্যই মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হবে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দ্বীপের দিকে সামরিক বিমান পাঠানোর সংখ্যা বাড়িয়ে তাইওয়ানের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অসন্তুষ্টি দেখিয়েছে চীন।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির আগস্টে তাইওয়ান সফরের প্রতিক্রিয়ায় চীন বিশাল সামরিক মহড়া করেছিল। এর অংশ হিসেবে দ্বীপের ওপর ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে চীন। এর প্রভাবে তাইওয়ান প্রণালীতে বাণিজ্য চরমভাবে ব্যাহত হয়, বিমানের ফ্লাইটের রুট পরিবর্তন করে বাধ্য হয় তাইওয়ান। এর আগে গত এপ্রিলে বর্তমান মার্কিন হাউস স্পিকার কেভিন ম্যাকার্থির সঙ্গে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ​​ইং-ওয়েনের সাক্ষাতের প্রতিক্রিয়ায় দ্বীপের চারপাশে আকাশ ও সাগরে বড় আকারের যুদ্ধ প্রস্তুতির মহড়া চালায় চীন। সূত্র: আল আরবিয়া নিউজ 

সম্পাদক : জোবায়ের আহমেদ নবীন