শুক্রবার, ৩১ মে, ২০২৪

অবরোধে দেশজুড়ে সহিংসতা

রাজধানীতে মঙ্গলবার একাধিক বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা- সংগৃহিত

বিএনপি-জামায়াতের ডাকা তিন দিনের অবরোধের প্রথম দিনে অন্তত ৪জন নিহত ও পুলিশসহ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় হামলা সংঘর্ষ ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় অবরোধকারীরা পুলিশকে কুপিয়ে আহত করেছে। এদিকে অবরোধ কর্মসূচি ঘিরে নাশকতা ঠেকাতে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি)। সোমবার রাত থেকে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় টহল দিচ্ছেন বিজিবি সদস্যরা। রাতে বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বিএনপি ও জামায়াতের অবরোধকে কেন্দ্র করে রাজধানীসহ সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সারাদেশে প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিজিবি মোতায়েন থাকবে। চলাচল বা পণ্য পরিবহনে কোথাও বাধা দেয়া হলে অথবা বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে কাজ করবে বিজিবি। বিশেষ করে মহাসড়ক ও রেলপথের নিরাপত্তায় বাড়তি নজর দেয়া হয়েছে।

রাজধানীর আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও নিরাপত্তা জোরদারে বিজিবি মোতায়েন রয়েছে। ধানমন্ডি, পল্টন, গুলিস্তান ও মতিঝিলসহ বিভিন্ন এলাকায় বিজিবি টহল দিয়েছে।

অন্যদিকে অবরোধ কর্মসূচির প্রথম দিনে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সতর্ক অবস্থানে ছিলেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। বিএনপির সন্ত্রাস-নৈরাজ্য থেকে জানমালের নিরাপত্তা দিতে কেন্দ্রের নির্দেশে তারা মাঠে নেমেছেন বলে জানিয়েছেন। এর মাধ্যমে আওয়ামী লীগ জনগণের পাশে আছে, সেই বার্তাও দিতে চেয়েছেন তারা।

একইসঙ্গে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা পর্যন্ত কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। এ সময়ে দেশব্যাপী শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ করবে দলটি। মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস, নাশকতা ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে দেশব্যাপী আওয়ামী লীগের শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ কর্মসূচি আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগমুহূর্ত পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

অবরোধে হতাহতের ব্যাপারে বিএনপি দাবি করেছে, তাদের দলের দুই নেতাকর্মী নিহত হয়েছেন।

তারা হলেন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য দিলু আহমদ জিলু ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়ন স্বেচছাসেবক দলের সভাপতি মো. জাকির হোসেন। জিলু গাড়ি চাপায় এবং জাকির নির্যাতনে নিহত হয়েছেন বলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভি দাবী করেছেন৷

এছাড়া মঙ্গলবার সকালে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরের ছয়সুতি এলাকায় অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের সময় দুইজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সেখানে কমপক্ষে ৪০ জন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- ছয়সুতি ইউনিয়ন কৃষক দলের সভাপতি মোহাম্মদ বিল্লাল মিয়া এবং একই ইউনিয়নের ছাত্রদলের সহসভাপতি মো. রেফায়েত উল্লাহ তনয়। জানা গেছে, অবরোধকারীরা পুলিশের দাবি, সংঘর্ষে তাদের ২৪ জন আহত হয়েছেন।

একইদিন সকাল সাড়ে আটটার দিকে নারায়ণগঞ্জের আড়াই হাজারে আওয়ামীলীগ-বিএনপি ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন। অবরোধকারীরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করতে গেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ দাবি করেছে, অবরোধকারীরা তাদের তিন সদস্যকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাবার বুলেট ও টিয়ার গ্যাস ছুঁড়েছে পুলিশ।

অবরোধে ঢাকার প্রেসক্লাবের সামনে বিকেলের দিকে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয়া হয়। মিরপুর, বিজয়নগর ও মাতুয়াইল এলাকায় যানবাহন ভাঙচুর করা হয়। আরকে মিশন রোড এলাকায় ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটে। গাজীপুরে বাসে আগুন দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রামে অন্তত: তিনটি বাসে আগুন দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। সিলেটে বাসে আগুন ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে বাংলাদেশে রাজনৈতিক সমাবেশে সহিংসতার খবরে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

এ বিষয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেন, বাংলাদেশে রাজনৈতিক সমাবেশে সহিংসতার খবরে জাতিসংঘের মহাসচিব উদ্বিগ্ন, যে সহিংসতায় অন্তত নয়জন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন অনেকে। বাংলাদেশের সব পক্ষকে সহিংসতা ও অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ বা নির্বিচার আটক থেকে বিরত থাকতে জাতিসংঘ মহাসচিব আহ্বান জানিয়েছেন বলে জানান মুখপাত্র।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস মঙ্গলবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের সঙ্গে দেখা করেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, গণতান্ত্রিক নির্বাচনে কোনো পক্ষের সংঘাতের জায়গা নেই। বাংলাদেশে উদ্বেগ প্রশমন এবং একটি অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পথ খুঁজতে সব পক্ষ শর্তহীন সংলাপে বসবে বলে আশা করি।

অন্যদিকে ২৮ অক্টোবর ঢাকায় রাজনৈতিক সমাবেশে সহিংসতার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত এবং দায়ীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছে। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরে সোমবার রাতে এক ব্রিফিংয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেন, আমরা গত ২৮ অক্টোবর ঢাকায় যে রাজনৈতিক সহিংসতা হয়েছে, তার নিন্দা জানাই।

একজন পুলিশ অফিসার, একজন রাজনৈতিক কর্মীকে হত্যা, একটি হাসপাতাল ও বাসে আগুন দেয়ার খবর যেমন অগ্রহণযোগ্য, তেমনি সাংবাদিকসহ সাধারণ মানুষের ওপর আক্রমণও মেনে নেয়া যায় না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনের দায়িত্ব ভোটার, রাজনৈতিক দল, সরকারসহ সবার। বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে সমর্থন দিতে প্রয়োজনে যুক্তরাষ্ট্র ব্যবস্থা নেবে।

এদিকে মঙ্গলবার বিকেলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রহুল কবির রিজভী অজ্ঞাত স্থান থেকে জুমের মাধ্যমে দেয়া এক বিবৃতিতে দাবি করেছেন, ২৮ অক্টোবর বিএনপির মহাসমাবেশ, ২৯ অক্টোবর বিএনপির হরতাল এবং ৩১ অক্টোবর বিএনপির অবরোধকে কেন্দ্র করে এ পর্যন্ত মোট দুই হাজার ২৮০ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, মামলা হয়েছে ৪৬টি, আহত হয়েছেন তিন হাজার ৩৫০ জন এবং একজন সাংবাদিকসহ আট জন নিহত হয়েছেন।

সম্পাদক : জোবায়ের আহমেদ নবীন